নতুন ইসির অগ্নি পরীক্ষা শনিবার


নিজস্ব প্রতিনিধি

আরটিএনএন

রাঙ্গামাটি: নতুন নির্বাচন কমিশনের (ইসি) অধীনে রাঙ্গামাটি পার্বত্য জেলার বাঘাইছড়ি পৌরসভার প্রথম ভোটগ্রহণ অনুষ্ঠিত হতে যাচ্ছে।

বাঘাইছড়ি পৌরসভায় মোট নয়টি কেন্দ্রে ৩৩ বুথে শনিবার সকাল ৮টায় ভোটগ্রহণ শুরু হয়ে টানা চলবে বিকেল ৪টা পর্যন্ত।

সুষ্ঠু ও শান্তিপূর্ণভাবে নির্বাচন অনুষ্ঠানে সর্বোচ্চ প্রস্তুতি নিয়েছে প্রশাসন ও নির্বাচন কমিশন। যে কোনো উপায়ে সর্বোচ্চ শক্তি দিয়ে নির্বাচনকে সুষ্ঠু করতে নির্বাচন কমিশন থেকে নির্দেশ দেয়া হয়েছে।

এজন্য চার স্তরের নিরাপত্তা ব্যবস্থা জোরদার থাকবে বলে জানান জেলা নির্বাচন কর্মকর্তা ও রিটার্নিং অফিসার মো. নাজিম উদ্দিন।

শুক্রবার বাঘাইছড়ি পৌরসভার নির্বাচনী এলাকা পরিদর্শন করেছেন সদ্য দায়িত্ব নেয়া নির্বাচন কমিশনার ব্রি. জেনারেল (অব.) শাহাদাৎ হোসেন চৌধুরী। সকাল ১০টায় উপজেলা পরিষদের মিলনায়তনে প্রশাসনিক, নির্বাচনী ও আইনশৃংখলা বাহিনী কর্মকর্তাসহ সংশ্লিষ্টদের সঙ্গে মতবিনিময় করেন তিনি।

এ সময় নির্বাচন কমিশনার বলেন, দেশের সব রাজনৈতিক দল নিয়ে অবাধ, নিরপেক্ষ ও গ্রহণযোগ্য নির্বাচন করতে চায় নতুন নির্বাচন কমিশন। বাঘাইছড়ি পৌরসভা নির্বাচন অনুষ্ঠানের মধ্য দিয়ে সেই দৃষ্টান্ত দেখাতে চাই আমরা।

তিনি বলেন, বাঘাইছড়ি পৌরসভার নির্বাচনের মধ্য দিয়েই আগামী পাঁচ বছরের জন্য যাত্রা শুরু করতে যাচ্ছে বর্তমান ইসি। তাই এই নির্বাচনকে চ্যালেঞ্জ হিসেবে নিয়ে গ্রহণযোগ্য করতে যা যা করণীয় তার সব ধরনের পদক্ষেপ নেয়ার নির্দেশ দেয়া হয়েছে।

নির্বাচন কমিশনার আরো বলেন, বাঘাইছড়ি নির্বাচনে আইনশৃংখলা ও শান্তিপূর্ণ পরিবেশ বজায় রাখতে ‘জিরো টলারেন্স’ বিবেচনায় সর্বাত্মক পদক্ষেপ নেয়া হয়েছে।

মতবিনিময় সভায় উপস্থিত ছিলেন জেলা প্রশাসক মো. মানজারুল মান্নান, পুলিশ সুপার সাঈদ তারিকুল হাসান, রিটার্নিং কর্মকর্তা মো. নাজিম উদ্দিন, উপজেলা চেয়ারম্যান বড়ঋষি চাকমা, উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা তাজুল ইসলামসহ নির্বাচনী কর্মকর্তা ও আইনশৃংখলা বাহিনীর কর্মকর্তারা।

উল্লেখ্য, নির্বাচনে আওয়ামী লীগ, বিএনপি ও একজন স্বতন্ত্রসহ মেয়র পদে প্রতিদ্বন্দ্বিতা করছেন তিনজন। মেয়র পদে নৌকা প্রতীক নিয়ে আওয়ামী লীগের মো. জাফর আলী খান, ধানের শীষ প্রতীক নিয়ে বিএনপির ওমর আলী এবং মোবাইল ফোন প্রতীক নিয়ে সাবেক উপজেলা আওয়ামী লীগ নেতা মুক্তিযোদ্ধা আজিজুর রহমান আজিজ স্বতন্ত্র হিসেবে প্রতিদ্বন্দ্বিতা করছেন।

এছাড়া ৯টি ওয়ার্ডে সাধারণ কাউন্সিলর পদে ২৫ জন এবং ৩টি সংরক্ষিত মহিলা আসনে ৬ জন প্রার্থী প্রতিদ্বন্দ্বিতা করছেন। এই পৌরসভায় মোট ভোটার সংখ্যা ১০ হাজার ১৭৭ জন।