সরকার চাইলে প্রশ্নপত্র ফাঁস হতো না: জাফর ইকবাল


নিজস্ব প্রতিনিধি

আরটিএনএন

চট্টগ্রাম: একের পর এক প্রশ্নপত্র ফাঁসের ঘটনায় উদ্বেগ প্রকাশ করে অধ্যাপক মুহম্মদ জাফর ইকবাল বলেছেন, আমাদের শিক্ষা মন্ত্রণালয় বা সরকার যদি সিদ্ধান্ত নেয় যে প্রশ্নপত্র ফাঁস হবে না, তাহলে প্রশ্নপত্র ফাঁস হবে না। তার মানে ওই সিদ্ধান্তটা নেয়া হয় নাই। সরকার চাইলে প্রশ্নপত্র ফাঁস হতো না।

শুক্রবার চট্টগ্রাম সিটি করপোরেশন মিউনিসিপ্যাল মডেল হাই স্কুল অ্যান্ড কলেজে ‘শব্দকল্পদ্রুম পিপীলিকা বাংলা উৎসবে’ এসে সাংবাদিকদের প্রশ্নের জবাবে তিনি এ কথা বলেন।

অধ্যাপক জাফর ইকবাল বলেন, আপনারা জানেন যে প্রশ্নপত্রের ভিন্ন ভিন্ন সেট থাকে। যেমন ‘এ’ সেট, ‘বি’ সেট, ‘সি’ সেট ইত্যাদি। সবগুলো সেটই আউট হয়ে যাচ্ছে।

তিনি বলেন, রাষ্ট্র হিসেবে আমরা ভালো করে একটা পরীক্ষা নিতে পারি না, এরচেয়ে বড় ব্যর্থতা আর কি হতে পারে।

প্রশ্ন ফাঁস হওয়ার পেছনে নীতিনির্ধারকদের ‘শিথিল মনোভাব ও জড়িতদের শাস্তি না হওয়াকে’ দায়ী করে তিনি বলেন, সরকারের পরিকল্পনায় সমস্যা রয়েছে।

তিনি আরো বলেন, প্রশ্নপত্র ছাপানো ও বিতরণ যার দায়িত্ব, আমি তো দেখলাম না তার কোনো শাস্তি হতে; এত বড় একটা অন্যায় হচ্ছে, উনার গাফিলতির কারণে এ ঘটনাগুলো ঘটছে। আমি যদি দেখতাম যে জড়িতদের জেল দেয়া হচ্ছে, তাহলে ধরে নিতাম যে এটা রোধ করার জন্য তারা আন্তরিক। কিন্তু কারো কোনো দায়দায়িত্ব নাই। উনারা ধরে নিয়েছেন যে প্রশ্নপত্র ফাঁস হবে এবং এভাবেই চলবে। এভাবে চলতে পারে না আসলে।

তিনি আরো বলেন, যে শিক্ষার্থী প্রশ্নপত্র ফাঁস দেখে নাই, নিজের মত করে পরীক্ষা দিয়েছে, সে যখন দেখে একজন ফাঁস হওয়া প্রশ্নপত্রে পরীক্ষা দিয়ে তার চেয়ে ভালো কলেজে বা বিশ্ববিদ্যালয়ে পরীক্ষা দেয়ার সুযোগ পাচ্ছে, তখন তার যে মনোবেদনা, তাকে কীভাবে কী বলে সান্ত্বনা দেব, সেটা ভেবে আমি কূল পাই না।

‘প্রশ্নপত্র ফাঁস রোধ করে পরীক্ষা নেয়া সম্ভব’ দাবি করে অধ্যাপক জাফর ইকবাল বলেন, প্রশ্ন ফাঁস না করে পরীক্ষা নেয়া সম্ভব। প্রশ্ন যদি ফাঁস হয়, তাহলে বুঝে নিতে হবে, ফাঁস ঠেকানোর দায়িত্ব নিতে তারা রাজি নয়।

দিনব্যাপী পিপীলিকা বাংলা উৎসবে নগরীর ১৭টি স্কুলের প্রায় দুই হাজার শিক্ষার্থী অংশ নেয়। সকালে এ উৎসবের উদ্বোধন করেন গৃহায়ন ও গণপূর্ত মন্ত্রী ইঞ্জিনিয়ার মোশাররফ হোসেন।